.

নারী রোগীর হাতে-মুখে চুমু দিলেন ডাক্তার!

সিলেট টাইমস ডেস্কঃ চিকিৎসার নামে রোগীর হাতে-মুখে চুমু দেয়াসহ যৌ'ন হয়'রানির অ'ভিযোগ উঠেছে কুলাউড়ার ব্রাহ্মণবাজার খ্রীষ্টিয়ান মিশনের ডাক্তার ডেভিডের বি'রুদ্ধে। এক সিজারিয়ান অ'স্ত্রোপচার রোগীর সেলাই কা'টার সময়ে শরীরের স্প'র্শকাতর স্থানে স্প'র্শ করেন ডাক্তার ডেভিড।চিকিৎসকের এমন আচরণে ওই রোগীর আত্মীয় ব্রাহ্মণবাজার খ্রীষ্টিয়ান স্বাস্থ্য প্রকল্পের (বিসিএইচপি) পরিচালক বরাবর একটি লিখিত অ'ভিযোগ দিয়েছেন। এ ঘটনায় ত'দন্ত শুরু করেছে ব্রাহ্মণবাজার খ্রীষ্টিয়ান স্বাস্থ্য প্রকল্প (বিসিএইচপি) কর্তৃপক্ষ।

লিখিত অ'ভিযোগ সূত্রে জানাযায়, গত ১৫ সেপ্টেম্বর এক অন্তঃসত্ত্বা নারী ব্রাহ্মণবাজার খ্রীষ্টিয়ান মিশনের ডাক্তার ফরিদ আহম'দের কাছে চিকিৎসা নিতে আসেন। গৃহবধূর নরমাল ডেলিভারির জন্য ব্রাহ্মণবাজার খ্রীষ্টিয়ান মিশনে ভর্তি করেন এবং একদিন অ'পেক্ষার পরাম'র্শ দেন ডাক্তার ফরিদ। কিন্তু ওই দিন রাত ৩টায় খ্রীষ্টিয়ান মিশনে ইনচার্জ ডাক্তার ডেভিট গৃহবধূর অ'পারেশ (সিজার) করতে হবে বলে জানান রোগীর আত্মীয়দেরকে। সিজারের মাধ্যমে জন্ম নেওয়া নবজাতকের পরের দিন জ্বল এলে ডেভিডকে বিষয়টি অবগত করলেও গুরুত্ব দেননি তিনি।

অন্যদিকে গত ২৭ সেপ্টম্বর ওই গৃহবধূ অ'পারেশনের (সিজার) সেলাই কা'টাতে আসেন কুলাউড়ার ব্রাহ্মণবাজার খ্রীষ্টিয়ান মিশনে। খ্রিষ্টিয়ান মিশনের ইনচার্জ ডাক্তার ডেভিড সেলাই কা'টার এক পর্যায়ে গৃহবধূর হাতে-মুখে চুমু দেন এবং নানাভাবে যৌ'ন হয়'রানি করেন বলে অ'ভিযোগে উল্লেখ করা হয়।

এদিকে অ'ভিযোগের ভিত্তিতে ডাক্তার ডেভিডের বি'রুদ্ধে ত'দন্ত শুরু করেছে কুলাউড়ার ব্রাহ্মণবাজার খ্রীষ্টিয়ান স্বাস্থ্য প্রকল্প (বিসিএইচপি) কর্তৃপক্ষ। তবে বাদীর অ'ভিযোগ বিষয়টি ধামাচাপা দিতে একটি পক্ষ কাজ করছে।এ প্রসঙ্গে ডাক্তার ডেভিড অ'ভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তবে ডাক্তার ডেভিডের কাছ থেকে অ'ভিযোগ সংক্রান্ত প্রাসঙ্গিক বেশ কয়েকটি প্রশ্নের সদুত্তর পাওয়া যায়নি।এ প্রসঙ্গে কুলাউড়ার ব্রাহ্মণবাজার খ্রীষ্টিয়ান স্বাস্থ্য প্রকল্প (বিসিএইচপি) এডমিন উত্তম চক্রবর্তী বলেন, এ বিষয়টি আমাদের পরিচালক দেখছেন। এটা শক্তভাবে দেখা হবে। এ ঘটনা দুঃখ ও লজ্জাজনক বলে মন্তব্য করেন তিনি।

সূত্রঃ জুমবাংলানিউজ

Back to top button