হবিগঞ্জে হাসপাতা'লে স্ত্রী'র লা'শ রেখে স্বামী উধাও

সিলেট টাইমস ডেস্কঃহবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজে'লায় স্বামী তার পরিবারের বি'রুদ্ধে দুই সন্তানের জননীকে যৌতুকের জন্য পি'টিয়ে হ'ত্যার অ'ভিযোগ উঠেছে।বৃহস্পতিবার (২৫ জুন) সন্ধ্যায় হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতা'লে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই গৃহবধূর মৃ'ত্যু হয়। এ ঘটনার পর হাসপাতা'লে স্ত্রী'র ম'রদেহ রেখে পালিয়ে যান স্বামী লিটন মিয়া। খবর পেয়ে পু'লিশ ম'রদেহ উ'দ্ধার করে ময়নাত'দন্তের জন্য হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতা'লের ম'র্গে পাঠায়।

নি'হতের পরিবারের সদস্যরা জানান, উপজে'লার কুশিয়ারতলা গ্রামের মোহাম্ম'দ আলীর মে'য়ে মনোয়ারা বেগমকে (২৫) একই উপজে'লার নোয়াগাঁও গ্রামের আকবর আলীর ছে'লে লিটন মিয়ার কাছে পাঁচ বছর আগে বিয়ে দেয়া হয়। বিয়ের পর থেকে লিটন মিয়াসহ তার পরিবারের লোকজন মনোয়ারাকে যৌতুকের জন্য নি'র্যাতন করে আসছিল। এরই মধ্যে দুই সন্তানের মা হন মনোয়ারা। দুই কন্যা সন্তানের জন্ম হওয়ার পর থেকে লিটনের নি'র্যাতন আরও বেড়ে যায়। কন্যা সন্তানের মুখের দিকে তাকিয়ে সংসার করে আসছিলেন মনোয়ারা।

নি'হত মনোয়ারার বাবা মোহাম্ম'দ আলী বলেন, গত তিনদিন ধরে লিটন মিয়া মনোয়ারাকে মা'রপিট করে আসছে। মনোয়ারা ফোন করে বিষয়টি আমাকে জানায়। বৃহস্পতিবার বিকেলে মনোয়ারা জানায় তাকে আবারও মা'রধর করেছে লিটন। এর কিছুক্ষণ পরই লিটন ফোন করে আমাকে জানায় মনোয়ারা বিষপান করেছে। তাকে হাসপাতা'লে ভর্তি করা হয়েছে। খবর পেয়ে হাসপাতা'লে গিয়ে দেখি মনোয়ারার ম'রদেহ পড়ে আছে। ম'রদেহের পাশে স্বামী ও তার পরিবার কেউ নেই।

তিনি বলেন, মনোয়ারার শরীরে আ'ঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাকে তার স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন হ'ত্যা করেছে। আমি মে'য়ে হ'ত্যার বিচার চাই।বানিয়াচং থা'না পু'লিশের ওসি মোহাম্ম'দ এম'রান হোসেন বলেন, মনোয়ারা ইঁদুরের ওষুধ খেয়ে আত্মহ'ত্যা করেছে বলে শুনেছি। তবে ময়নাত'দন্তের রিপোর্ট এলে নিশ্চিত হওয়া যাবে কিভাবে মা'রা গেছে। তার স্বামী পলাতক। তাকে আ'ট'কের চেষ্টা চলছে।

সূত্রঃজাগো নিউজ

Back to top button
.