করো'নাভাই'রাসঃ সিলেটে ‘হাতধোয়া’ নিয়ে দু’পক্ষের সং'ঘর্ষ, আ'হত ২০

সিলেট টাইমস ডেস্কঃ সিলেট নগরীর পশ্চিম কাজলশাহ এলাকায় করো'না সংক্রমণ প্রতিরোধে ‘হাতধোয়া’ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে সং'ঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এসময় দুই দফা পাল্টাপাল্টি হা'মলায় দু’পক্ষের অন্তত ২০ জন আ'হত হয়েছেন।জানা গেছে, বুধবার বিকেলে ৯ নং ওয়ার্ডের এতিম স্কুল রোডের কিছু যুবক করো'নাভাই'রাস সংক্রমণ প্রতিরোধে ‘হাতধোয়া’ কর্মসূচি ও জীবাণুনাশক স্প্রে করে আসা-যাওয়া মানুষের মাঝে। এসময় পশ্চিম কাজলশাহ এলাকার গিয়াস মিয়া নামের এক ব্যাক্তির হাতে স্প্রে দিতে গেলে তিনি তাদেরকে গালিগালাজ করেন। বিষয়টি নিয়ে পশ্চিম কাজলশাহ এলাকার বাসিন্দা ও এতিম স্কুল এলাকার বাসিন্দাদের মাঝে এক দফা ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

এর জের ধরে সন্ধ্যার পর ফের উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পুরো এলাকা। এসময় এতিম স্কুল রোডের জুমন, শরীফ, হিমেল, নাহিদের নেতৃত্বে বেশ কিছু যুবক দেশীয় অ'স্ত্রশস্ত্র নিয়ে গিয়াস মিয়ার বাসায় হা'মলা চালায়। ভাংচুর করে কয়েকটি দোকানপাট। একপর্যায়ে দু’পক্ষের মধ্যে তুমুল সং'ঘর্ষ ও ইটপাট'কেল নিক্ষেপ শুরু হলে অন্তত ২০ জন আ'হত হন।

আ'হতরা হলেন- রাসেল আহম'দ, সাকিব আহম'দ, গৌছ মিয়া, মামুন, মান্না, শাকিল, সাইফুল ইস'লাম, শাহনুর মিয়া, গিয়াস মিয়া, রুহেল, ইমন, জসিম প্রমুখ।পরে কোতোয়ালি থা'নার ওসি (ত'দন্ত) সৌমেন মিত্রসহ একদল পু'লিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কোতোয়ালি থা'নার ওসি সেলিম মিয়া।এদিকে সং'ঘর্ষের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন ৯ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মখলিসুর রমমান কাম'রান ও ৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আবুল কালাম আজাদ লায়েক। তারা দু’পক্ষকে নিয়ে সমাধানের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে।

সূত্রঃসিলেট ভ'য়েস

Back to top button
.